তিন বাহিনীর প্রধানের মেয়াদ সর্বোচ্চ ৪ বছর

তিন বাহিনীর প্রধানের মেয়াদ সর্বোচ্চ চার বছর রেখে ‘প্রতিরক্ষা-বাহিনী প্রধান (নিয়োগ, অবসান এবং বেতন ও ভাতাদি) আইন ২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে সোমবার আইনটির চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়া হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন।

বৈঠক শেষে সংবাদ ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। নতুন আইনে অবসর গ্রহণের একদিন আগেও বাহিনীর প্রধান হিসেবে নিয়োগ পেলে তিনি চার বছর পদে থাকতে পারবেন বলে জানিয়েছেন মোহাম্মদ শফিউল আলম।

তিনি বলেন, বর্তমানে প্রতিরক্ষা বাহিনী প্রধানের নিয়োগের ক্ষেত্রে রাষ্ট্রপতি কর্তৃক জেএসআই নামে একটি নির্দেশনা আছে। যদিও সংবিধানের ৬১-৬৩ ধারায় সংসদের আইন প্রণয়নের কথা বলা আছে। এর আলোকে ‘প্রতিরক্ষা বাহিনী প্রধান (নিয়োগ, অবসর এবং বেতন-ভাতাদি) আইন-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

তিনি বলেন, এটা খুবই ছোট আইন। এ আইনে সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী ও বিমান বাহিনী প্রধানের নিয়োগের ক্ষেত্রে একটি সুনির্দিষ্ট নির্দেশনার প্রস্তাব করা হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, আইন অনুযায়ী তিন বাহিনী প্রধানের স্বেচ্ছায় অবসর না নিলে নিয়োগের দিন থেকে তার মেয়াদ হবে সর্বোচ্চ চার বছর। তবে সরকারের ইচ্ছা অনুযায়ী কমও হতে পারে, কিন্তু বেশি নয়।

তিনি বলেন, প্রতিরক্ষা বাহিনী প্রধানরা মন্ত্রিপরিষদ সচিব মর্যাদায় সমান বেতন-ভাতা (৮৬ হাজার টাকা) পাবেন। দুটি উৎসব ভাতা, নববর্ষ ভাতা পাবেন। এছাড়া তিনি ৭ ধরনের আর্থিক সুবিধা পাবেন, এর মধ্যে আবাসন, সার্বক্ষণিক গাড়ি, সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসা, পরিবারের সদস্যদের চিকিৎসা, প্রয়োজনীয় জনবল পাবেন। নিয়োগের মেয়াদ শেষে অন্যান্য সরকারি চাকরিজীবীর মতো এক বছর পিআরএফ সুবিধাও পাবেন।

এছাড়া বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট আইন-২০১৬, বীজ আইন ২০১৬ এবং বাংলাদেশ চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন ইনস্টিটিউট (সংশোধন) আইন-২০১৬ এর খসড়া নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

Pin It